লিভার ড্যামেজের কিছু লক্ষণ যা আপনাকে অবশ্যয় জানতে হবে।


একজন মানুষের সুস্থতা নির্ভর করে লিভারের উপরেই ।লিভার ভাল থাকলে মানব শরীর ও ভাল থাকে। মানব দেহের সবচেয়ে গুরুত্ব পুর্ন অঙ্গটি হল লিভার। হজম শক্তি বৃদ্ধি থেকে শুরু করে বিষাক্ত পদার্থ দুর করা পর্যন্ত শরীরে বেশ কিছু কাজ লিভার করে থাকে।

বিভিন্ন কারণে
এই গুরুত্ব পুর্ন অঙ্গটি ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে। তাই সমস্যা শুরুর দিকে এর চিকিৎসা করা করা উচিত। না হলে লিভার ড্যামেজের মতো ঘটনা ঘটতে পারে । লিভার ড্যামেজ বড় কোন শারীরিক লক্ষণের মাধ্যমে প্রকাশ নাও হতে পারে।
লিভার ড্যামেজের কিছু লক্ষণ  রয়েছে যেমন –
১.পেট ফোলাঃ


পেট ফোলা একটি বিশেষ লক্ষণ । লিভারে প্রোটিন , অন্যান্য উপাদান সমুহ , এবং তরল পদার্থের মধ্যে ভারসাম্যহীনতা দেখা দিলে পেট ফুলে যায়। বিশেষ করে নাভির কাছাকাছি স্থান থেকে পেটের চারপাশ ফুলে যায়। মাঝে মাঝে পেটের সাথে হাত , পা, এবং হাত পায়ের গিঁট ফুলে যায়।
২. মুখের দুর্গন্ধঃ


মুখের দুর্গন্ধ হলে মানুষের সামনে মুখ খোলে কথা বলা যায় না। এই রকম লিভারের সমস্যার কারণেই বেশির ভাগ হয়ে থাকে। লিভার ঠিক মতো কাজ না করলে মুখে দুর্গন্ধ সৃষ্টি হয়। শরীরে অতিরিক্ত অ্যামোনিয়া উৎপাদন হওয়ার কারনে পচা পেঁয়াজ অথবা মাছের গন্ধ বের হতে পারে মুখ থেকে।
৩.কালশিটে পড়াঃ


অনেক সময় শরীরের বিভিন্ন অংশে কালশিট পড়ে । এটি ও লিভারের সমস্যা থেকেই হয়ে থাকে। ক্ষতিগ্রস্থ লিভার রক্ত জমাটের জন্য প্রয়োজনীয় প্রোটিন কম উৎপাদন করে। যার কারণে খুব সহজে ত্বকে কালশিট পড়ে যায়। হালকা আঘাতে যদি ত্বকে কালশিটে পড়ে যায় , তবে দেরি না করে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।
৪. ক্লান্তিঃ


ক্লান্তি সকলেই কম বেশি হয়। কাজ করলে ক্লান্ত হবেন সকলেই। কিন্তু অল্পতেই ক্লান্ত হওয়া বা অতিরিক্ত ক্লান্ত হওয়া বড় কোন রোগের লক্ষণ হতে পারে। লিভার আপনাকে সারা দিনের কাজের শক্তি দিয়ে থাকে। কফি,চা অথবা ক্যাফেইন জাতীয় পানিয় ক্ষতিগ্রস্থ লিভারের আরও বেশি ক্ষতি করে থাকে। চা,কফির পরিবর্তে পানি অথবা
ফলের রস এই সময় ভাল কাজ করে।
৫.বমি বমি ভাব এবং হজমে সমস্যাঃ


বমি বমি ভাব শুধু যে গর্ভকালিন সময়েই হয় তা কিন্তু নয়। লিভারের সমস্যার কারনেও হয়ে থাকে। লিভার বড় হয়ে গেলে বা লিভারে চর্বি জমে গেলে পানি হজম করাটাও কঠিন হয়ে যায়। অল্প হজমে সমস্যা হলে বুঝে নিতে হবে লিভারে সমস্যা শুরু । তাতে বমি বমি লাগে। ক্ষতিগ্রস্থ লিভার শরীর থেকে টক্সিন পদার্থ দুর করতে ব্যার্থ হয় যার কারনে ও বমি হয়।

৬. ত্বকের রঙ পরিবর্তনঃ


লিভারে চর্বি জমে গেলে বা লিভারে সমস্যা হলে ত্বকে সাদা স্পট দেখা দেয় এবং এতে লিভারের পিগমেনশন হারিয়ে ফেলে এবং দিনে দিনে হলুদ রঙ ধারণ করে।
৭. পেট ব্যাথাঃ

লিভারে সমস্যা হলে পেট ব্যাথা থাকতে পারে। অল্প অল্প করে ব্যাথা সারাক্ষণ করবে এবং মনে হবে যে , ব্যাথা নড়াচড়া করছে। এই রকম হলে অবশ্যয় চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।
তাছাড়া ও লিভারের সমস্যা হলে খাবারে অরুচি,চোখ হলুদ ও মুখ তেঁতো ইত্যাদি লক্ষণ দির্ঘদিন ধরে থাকলে অবশ্যয় চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে।


Like it? Share with your friends!

Your reaction?
happy happy
0
happy
angry angry
0
angry
wtf wtf
0
wtf
cute cute
0
cute

লিভার ড্যামেজের কিছু লক্ষণ যা আপনাকে অবশ্যয় জানতে হবে।

log in

reset password

Back to
log in